আমি পারভেজ আখতার, ThemeXpert এর প্রতিষ্ঠাতা
আমি যেভাবে কাজ করি

Shares

নাম ও পেশা

আমি পারভেজ আখতার। ThemeXpert এর সি.ই.ও এবং প্রতিষ্ঠাতা।

ThemeXpert শুরু করার পেছনের গল্পটা সবার সাথে শেয়ার করবেন?

২০০৬ সালের মাঝামাঝি আমরা ৪ বন্ধু মিলে শুরু করি আমাদের প্রথম স্টার্টআপ SphotikIT। আমরা ওয়েব ডেভলপমেন্ট সার্ভিস দিতাম এবং বেশ ভালই করছিলাম কিন্তু পার্টনারশিপ জটিলতার কারণে আমরা সব কিছু বন্ধ করে দেই। তারপর কিছুদিন ফ্রিল্যান্সিং করি এবং ২০১০ সালের জুলাই মাসে ThemeXpert লঞ্চ করি।

 আপনার কিছু ব্যর্থতার কথা বলুন যেটি আপনাকে সাফল্যে অনেক বেশি সহায়তা করেছে?

ThemeXpert শুরু করার পরেও আমি আরও কয়েকবার কয়েক জনের সাথে পার্টনারশিপে বিজনেস করার চেষ্টা করেছি এবং প্রত্যেক বারই ফেইল করি।

আমার দৃষ্টিতে ফেইলর হচ্ছে তখনই যখন আপনি সেটা থেকে কিছু শিখতে না পারবেন। প্রতিটা ফেইলর একটা নতুন শিক্ষা দেয়।

আপনার স্টার্ট-আপের সবচেয়ে বড় বাঁধা কি ছিল এবং আপনি কিভাবে তা সমাধান করেছেন?

আমার সবচেয়ে বড় বাঁধা আমি নিজে। প্রতিদিন নিজেকে নতুন কিছু শিখাই। আমার সব চেয়ে বড় সমস্যা বলে যেটা মনে করি, আমি কাউকে কখনো কোন কিছুতে ‘না’ বলতে পারিনা। ‘না’ বলতে পারাটা অনেক বড় যোগ্যতা যেটা আমি আস্তে আস্তে রপ্ত করছি। একজন সফল উদ্যোক্তা হতে গেলে তাকে জানতে হবে, কখন কাকে না বলতে হবে এবং কোথায় থামতে হবে।

আপনার নতুন প্রোডাক্ট “OnePager‬” সম্পর্কে কিছু বলেন।

২০১৫ সালের আগ পর্যন্ত আমরা জুমলা সিএমএস এর জন্য থিম এবং প্লাগিন বানাতাম। এই বছর থেকে আমরা WordPress এর জন্য থিম বানান শুরু  করি । যেহেতু ওয়ানপেজ সাইট এখন একটা ট্রেন্ড এ পরিণত হয়েছে আমরা এটা দিয়ে শুরু করি। থিম বানাতে গিয়ে দেখলাম যে কোন ইউনিফাইড ইউজার এক্সপেরিয়েন্স নেই, যার যেমন খুশি বানাচ্ছে। একটা থিম চেঞ্জ করলে আমাদের নতুন করে অন্য থিম ব্যবহার শিখতে হচ্ছে যেটা আসলে হওয়া উচিত না।

আমি বেশ কিছু থিম ডেভেলপার এর সাথে কথা বললাম এবং দেখলাম তারাও এই প্রব্লেম ফেস করছে, তাই আমরা সিদ্ধান্ত নিলাম আমরা একটা পেজ বিল্ডার বানাব যেটা শুধু ইউজার এর জন্য সহজ হবে না বরং ডেভলপাররাও খুব সহজে কোড করতে পারবে। দীর্ঘ ৪ মাস ডেভেলপ এর পর আমরা বেটা ভার্সন রিলিজ করলাম এবং সবাই এটাকে খুব ভাল ভাবে গ্রহণ করল। ProductHunt এ OnePager কে ফিচার করল। আপনারা হয়ত জানেন ProductHunt এ ফিচার্ড হওয়া কতটা কঠিন। আর কয়েক দিন পর আমরা ইনশা আল্লাহ OnePager এর ফুল ভার্সন রিলিজ করব।

www.getonepager.com যেখান থেকে আপনারা আরও ভাল ভাবে জানতে পারবেন।

1

 

উদ্যোক্তাদের বড় একটি সমস্যায় পরতে হয় পার্টনার নির্বাচন করায়। এই বিষয়ে আপনার কোন পরামর্শ আছে?

পার্টনার নির্বাচন জীবন সঙ্গী নির্বাচন এর মতই কঠিন জিনিস এবং বেশির ভাগ সময় আমরা এখানে ভুল করি। একা কোন বড় কাজ করা অনেক কঠিন তাই আমাদের পার্টনার দরকার হয় আবার ভুল পার্টনার নিলে বড় কাজ কেন ছোট কাজও করা মুশকিল হয়ে যায়। ব্যাক্তিগত ভাবে আমি এই সমস্যায় অনেক বার পরেছি তাই আমি এখন কিছু নিয়ম মেনে চলি যা মেনে চললে আপনার হয়ত পার্টনার নির্বাচন সহজ হবে ।

  1. পার্টনার নির্বাচনে কখন তাড়াহুড়া করবেন না।
  2. আপনি সব বিষয়ে সমান পারর্দশী না তাই যেই বিষয় আপনার দখলের বাইরে শুধুমাত্র সেই বিষয়ে আপনার মত বা আপনার চেয়ে দক্ষ কাউকে নির্বাচন করা। মনে রাখবেন, A player hire A player, B player hire C player and C player hire D player।
  3. আপনার ভিশনের সাথে পুরোপুরি একমত হতে হবে, এই জন্য সময় নেন তার সাথে আলোচনা করেন দিনের পর দিন মাসের পর মাস। এই বিষয়ে কোন সমস্যা থাকলে তা পরে বড় সমস্যা তৈরি করবে।
  4. আপনি যদি কাজ পাগল হন তাহলে আপনার থেকে বড় পাগল কে নিবেন আর আপনি যদি কাজের ক্ষেত্রে ফর্মাল হন তাহলে ফরমাল কাউকে নিবেন। উল্টো টা ঘটালেই বিপদে পরে যাবেন।
  5. কেন একজনকে পার্টনার নিচ্ছেন তা দুই পক্ষেই পরিষ্কার থাকতে হবে। শুরু থেকেই যার যার রোল পরিষ্কার থাকতে হবে।
  6. কাউকে পার্টনার করার আগে তার পরিবার সম্পর্কে খোঁজ খবর নিন, হতে পারে তার বাবা, ভাই, বা কেউ পরে কোন সমস্যা করতে পারে।

আপনার মতে, আপনি কাকে উদ্যোক্তা বলেন আর কাকে ব্যবসায়ী?

উদ্যোগ হচ্ছে কোন কিছু শুরু করা আর ব্যবসা হচ্ছে উদ্যোগ থেকে লাভ ক্ষতির হিসাব করা। একজন উদ্যোক্তা সফল ব্যবসায়ী হতে পারে আবার বিফলও হতে পারে। উদ্যোগতা তারাই যারা কোন সমস্যা সমাধানের জন্য উদ্যোগী হয় আর ব্যবসায়ী তারা যারা উদ্যোগ কে কাজে লাগিয়ে এর থেকে টাকা তৈরি করতে জানে।

আপনি আপনার টিম মেম্বারদের আপনার সাথে দীর্ঘ সময় কাজ করার জন্য কিভাবে অনুপ্রানিত করেন?

এর জন্য আগে দরকার ভাল টিম তৈরি করা। নতুনদের প্রথম সমস্যা হয় ভাল টিম বানানো। টিম কে লম্বা সময় ধরে রাখার শর্ত হচ্ছেঃ

  • নিজের একটা কালচার তৈরি করা
  • কোম্পানির ভিশনের সাথে কাজ করা
  • ভাল মন্দ সবার সাথে ভাগ করে নেয়া
  • সবার মতামত কে গুরুত্ব দেয়া
  • নতুন কিছু শিখতে উৎসাহ করা
  • শেখার ব্যবস্থা করে দেয়া
  • কাজের সমালোচনা না করে গঠনমূলক ভাবে তার ভুল গুলো ধরিয়ে দেয়া

অর্থ সব সময় প্রভাবক হিসাবে কাজ করে কিন্তু একজন ভাল ডেভেলপার বা ডিজাইনার এর কাছে অর্থ প্রধান প্রভাবক হিসাবে কাজ করা উচিত না। ভাল টিমের সাথে কাজ করার সুযোগ পাওয়াটাও অনেক বড় পাওয়া।

আপনার কাজের ডেস্কটি কেমন?

আমি সবার সাথে বসে কাজ করি।

2

এটাই আমার কাজের ডেস্ক

 

কিভাবে আপনার টিম মেম্বাররা আপনার ভিশনের সাথে এক হয়?

আসলে যারা একমত হয় তারাই টিম মেম্বার হওয়ার সুযোগ পায়। একটা কোম্পানি বা স্টার্টআপ এর নিজস্ব একটা ভিশন থাকে যা কারো একমত হওয়ার সাথে নির্ভরশীল না। তাই যারা একমত হয় শুধুমাত্র তারাই আমাদের টিমের সাথে কাজ করার সুযোগ পায়।

আপনার সফলতার পেছনে কোন জিনিসটির অবদান সবচেয়ে বেশি?

আমি এখন নিজেকে সফল বলে মনে করি না। নিজেকে তখনই সফল বলব, যখন কাজের মাধ্যমে বড় কোন সমস্যার সমাধান করতে পারব এবং এর সুফল একটি বৃহৎ সংখ্যক লোক ভোগ করবে। তবে এখন পর্যন্ত যা যা করেছি এবং যা পেয়েছি তার জন্য আল্লাহর কাছে শুকরিয়া করে শেষ করা যাবে না। যেহেতু এখনো নিজেকে সফল ভাবি না তাই কার অবদান বেশি তা ভেবে দেখিই নি।

উদ্যোক্তা হিসেবে, কোন মানুষটির চিন্তা-ভাবনা আপনার কাছে ভাল লাগে ?

এলন মাস্ক।

প্রতিদিন আপনার কাছে এমন কি মনে হয়, যে আপনি সবার থেকে আলাদা?

না, বরং নিজেকে সবার কাতারে রেখেই চলতে পছন্দ করি। যে কোন সমস্যা সমাধানের জন্য সমস্যা উপলব্ধি করা প্রয়োজন এবং সবার থেকে আলাদা থেকে তা সম্ভব না।

আপনার প্রতিদিনকার কাজ সম্পাদন করার জন্য কোন ডিভাইসটি সবচেয়ে বেশি ব্যবহার করে থাকেন এবং কেন?

আমার ল্যাপটপ MacBook Pro। যেহেতু আমি নিজে একজন প্রোগ্রামার তাই এটাই আমার বেশি ব্যবহার করা হয়। বাহিরে থাকলে মোবাইল থেকে ইমেল চেক করি এবং রিপ্লেই দেই। 3

প্রতিদিনের টু-ডু লিস্ট তৈরি করার জন্য কোন সফটওয়্যার/পন্থাটি আপনার কাছে সেরা মনে হয়?

কাগজ, কলম এবং নোটবুক । Wunderlist ব্যবহার করি নিয়মিত কারন এটা মোবাইল এর সাথে সিঙ্ক থাকে কিন্তু নোটবুক এই ব্যবহার করা হয় বেশির ভাগ সময়। বাজারে যত সফটওয়্যার আছে সবই মোটামুটি ব্যবহার করেছি কিন্তু কাগজ কলম আমার কাছে সবচেয়ে ইফেক্টিভ মনে হয়েছে।

একজন বাংলাদেশি হিসেবে যানজট আমাদের নিত্য দিনের সঙ্গী। আপনি যানজটের সময়টাকে সদ্ব্যবহার করার জন্য কি করেন?

যানজট এড়ানোর জন্য আমি মটর সাইকেল ব্যবহার করি তাই অন্য কিছু করার সুযোগ নাই।

আপনার দৈনিক ঘুমানোর সময়সূচি কেমন ?

দৈনিক ৬-৭ ঘণ্টা ঘুমাই। ঘুমাতে যাওয়ার কোন নির্দিষ্ট সময় নেই কিন্তু সকাল ৯ টার আগে উঠে পরি। চেষ্টা করছি সময়টা আগিয়ে ৬ টায় করা।

একজন উদ্যোক্তার কোন তিনটি বই বা সিনেমা অবশ্যই পড়া বা দেখা উচিৎ ?

বাংলাদেশের কিছু সম্ভাবনাময় উদ্যোক্তাদের সম্পর্কে বলুন যাদের সফলতার গল্প আপনার কাছে উল্লেখযোগ্য মনে হয়?

বলতে গেলে লিস্ট অনেক বড় হয়ে যাবে কিন্তু কিছু কিছু উদ্যোক্তাদের সাফল্য আমাকে সত্যি অনেক অনুপ্রেরণা দেয়।

যারা ভবিষ্যতের উদ্যোক্তা হতে যাচ্ছে তাদেরকে আরও উৎসাহিত করতে আপনার উপদেশ কি হবে?

আমি ২টা নীতি মেনে চলি এবং মনে করি নতুনরা যারা উদ্যোক্তা হতে চান তাড়াও যদি মেনে চলেন তাহলে লাভবান হবে, তা হচ্ছে ঃ

  1. DO NOT work hard, work smart
  2. Never Settle

আমরা অনেকেই বিশ্বাস করি কঠোর পরিশ্রম করলে মনে হয় সফল হওয়া যায়, ধারনা টা ভুল। তাহলে যারা কামলা খাটে তারা অনেক সফল হয়ে যেত।পরিশ্রম করতে হবে কিন্তু সেটা বুদ্ধিমত্বার সাথে, তাহলেই সফল হওয়া যাবে।

এবং কখনই কাজের ব্যপারে আত্বতুষ্টিতে ভোগা যাবে না, সব সময় শুধু কিভাবে আরও ভাল করা যায় সেই পদ্ধতি নিতে হবে (Never Settle)। নতুনদেরকে আরও বলব, ফোকাস থাকতে। একসাথে অনেক কিছু নিয়ে কাজ না করতে। ‘Do one thing and Do it well’ – একটা কাজ করুন এবং সেটা ভাল ভাবে করুন।

শূন্যস্থান পুরন করুন, আমি এই একই প্রশ্নের উত্তর গুলো  ______ কাছ থেকে শুনতে পছন্দ করব।

কাউসার ভাই, জুমশেপার

Shares